চাকরির বিজ্ঞপ্তি

Transaction Service Officer এর নিয়োগ প্রক্রিয়া ও কাজ সম্পর্কে

IFIC Trainee Assistant Officer/ Bank Transaction Service Officer এর কাজ সমূহ

আইএফআইসি ব্যাংক সম্পর্কে

ইন্টারন্যাশনাল ফাইনান্স ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড কমার্স (আইএফআইসি) ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশ সরকার ও বেসরকারি উদ্যোক্তা নিয়ে ১৯৭৬ সালে গঠিত হয়। ১৯৮৩ সালে সরকার ব্যাংক বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেয়া শুরু করলে আইএফআইসি ব্যাংক পুরাপুরি বেসরকারি খাতে চলে যায়। বর্তমানে ব্যাংকটিতে ৩২.৭৫% শেয়ার সরকারের এবং বাকি অংশ পরিচালক, উদ্যোক্তা ও সাধারণ জনগণের। Transaction Service Officer আইএফআইসি ব্যাংকের একটি এন্ট্রি লেভেলের জব যার গ্রেড ও র‌্যাংক হল সহকারী অফিসার বা Assistant Officer. প্রশিক্ষন চলাকালীন এই পদকে Trainee Assistant Officer ও বলা হয়।

 

কার্যক্রম

বর্তমানে ব্যাংকটি বিভিন্ন ধরনের সেবা দিচ্ছে –

  • রিটেইল ব্যাংকিং
  • কর্পোরেট ব্যাংকিং
  • এসএমই ব্যাংকিং
  • বিনিয়োগ ব্যাংকিং

 

আই এফ আই সি ব্যাংক শাখা সমূহ

মোট শাখা সংখ্যা ১৫৪ টি।

মোট উপশাখা সংখ্যা ৫০৭ টি।

Functional Position (Grade/Rank)

  • Transaction Service Officer (TSO)

 

Grade and Rank Position

  • Trainee Assistant Officer (TAO)

 

Current Circular of TSO June 2022

আই এফ আই সি ব্যাংকের  TSO নিয়োগ প্রক্রীয়া

[su_box title=”IFIC Bank Transaction Service Officer Recruitment Process “]
  • Selected candidates are shortlisted.
  • Initial Interview through Zoom App or MCQ Test.
  • Written exam in 100 marks.
  • Computer proficiency test.
  • Final Interview[/su_box]

 

IFIC ব্যাংকের Transaction Service Officer পোস্টের নিয়োগ পরিক্ষার প্রশ্নের মান জানতে লিংকে প্রবেশ করুন।

IFIC ব্যাংকের Transaction Service Officer পোস্টের Exam সম্পর্কে বিস্তারিত

 

Recruitment Process of Trainee Assistant Officer at IFIC Bank

TSO এর শর্টলিস্ট কিভাবে করা হয়?

প্রাথমিক ভাবে নির্বাচিত প্রার্থিকে তার যোগ্যতার উপর ভিত্তি করে কর্তৃপক্ষ তাকে শর্টলিস্টের জন্য বিবেচনা করে। আপনি শর্টলিস্টে বিবেচিত হলে তবেই পরবর্তি ধাপে যেতে পারবেন।

 

TSO পদে শর্টলিস্ট না করার কারণ

শর্টলিস্ট না হওয়ার অনেক কারণ থাকলেও মোটা দাগে বেশকিছু কারণ রয়েছে।

তার মধ্যে সেরা ১০ টি কারণ হলো:-

১। কম্পিউটার কোর্স না থাকা: অন্যসবকিছু ঠিক থাকার পরও শুধুমাত্র কম্পিউটার কোর্স না থাকার জন্য ৮০% ক্যান্ডিডেট বাদ পড়ে যায়। ন্যাশনাল ব্যাংক সহ কয়েকটি ব্যাংক বাদে প্রায় সব ব্যাংক কম্পিউটার কোর্স বাধ্যতামূলক হিসেবে বিবেচনা করে। ন্যাশনাল ব্যাংক করেনা, কারণ প্রশিক্ষণ তথ্য যুক্ত করার অপসন তারা রাখেনা। ৩ মাসের চেয়ে ৬ মাসের কম্পিউটার কোর্স বেশি গ্রহণযোগ্য।

২। সঠিকভাবে তথ্য না দেয়া: ইমেইল ও মোবাইল নাম্বারের মাধ্যমে মূলত ব্যাংক ক্যান্ডিডেটের সাথে যোগাযোগ করে। সে মোবাইল নাম্বার বা ইমেইল যদি ভুল থাকে তবে মেইল বা মেসেজ দিলেও ক্যান্ডিডেট জানতে পারে না তার পরীক্ষার কথা।

৩। ওভার কোয়ালিফাইড: এন্ট্রি লেভেলের জবে যদি ব্যাংক দেখে তাদের প্রত্যাশার চেয়ে বেশি জিপিএ নিয়ে আবেদন পড়েছে, তখন ব্যাংক উক্ত কর্মী থাকবে না ধরে নিয়ে শর্টলিস্ট থেকে বাদ দেয়। মূলত নরমাল ব্যাংক এসব ঝুঁকি নিতে চায়না।

৪। একাধিক পদে আবেদন : একইসাথে যদি একাধিক পদে বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়, তবে যে কোন একটি পদে আবেদন গ্রহণ করা হয়। কাজেই একের অধিক পদে আবেদন করলে প্রথম আবেদন গ্রহণ করে পরেরগুলো বাদ দেয়া হয়। কিছু ব্যাংক বিজ্ঞপ্তিতে বলে দেয়, কিন্তু স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক সেটি বলে না।

৫। কাঙ্খিত জেলা না হওয়া : হঠাৎ করে অল্প সময়ের ব্যবধানে যদি ব্যাংকের কোন শাখায় দ্রুত লোক নেয়ার প্রয়োজন হয়, তবে উক্ত ব্যাংকের আশেপাশের জেলার আবেদনগুলোই শুধু শর্টলিস্ট করে। ফলে দূরের জেলার আবেদন বাদ পড়ে যায়।

৬। অল্প সংখ্যক পদ : প্রতিষ্ঠানের বিশেষায়িত পদে অল্প সংখ্যায় কর্মী নিয়োগ দেয়া হয়। ফলে প্রয়োজনীয় কর্মী অনুপাতে অল্প সংখ্যায় ক্যান্ডিডেট ডাকা হয়। তাই আবেদন বেশি পড়লেও অল্প সংখ্যায় শর্টলিস্ট করা হয়।

৭। প্রয়োজনীয় অভিজ্ঞতা না থাকা : প্রস্তাবিত পদের চাহিদা অনুযায়ী অভিজ্ঞতা না থাকলে সেগুলো বাঁছাই করে বাদ দেয়া হয়। কাজেই আবেদন করার আগে ন্যূনতম অভিজ্ঞতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ উপরের পদের চাকরির জন্য।

৮। মাঝামাঝি আবেদন না করা: অনেক সময় এইচ আর গণহারে মার্ক করে শর্টলিস্ট করলে সবার আগে ও সবার পরে আবেদনগুলো বাদ পড়ে যায়। তাই চাকরির আবেদন মাঝামাঝি করতে হবে।

৯। নির্দিষ্ট লেভেলের চেয়ে কম জিপিএ/সিজিপিএ : অন্যান্য পরীক্ষার রেজাল্ট ভালো হওয়া সত্ত্বেও শুধুমাত্র একটি বোর্ড পরীক্ষায় অতিমাত্রায় খারাপ রেজাল্টের জন্য পুরো আবেদনটি বাদ দেয়া হয়।

১০। অসম্পূর্ণ আবেদন : আবেদনপত্রের কোন ফিল্ড পূরণ না করলে সাধারণত আবেদন গ্রহণ করা হয়না। কিন্তু এমন যদি হয় ফিল্ড আংশিক লেখা হলো, তবে আবেদন গ্রহণ করা হলেও শর্টলিস্টে স্থান পাওয়া যায় না।

See also  বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্পোরেশন (BIWTC) নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

এছাড়া আরেকটি কারণ হলো ব্যাংক আপনাকে শর্টলিস্ট করেছে, মেইলও পাঠিয়েছে। কিন্তু আপনার ইমেইল একাউন্ট তাকে স্প্যাম বিবেচনা করে স্প্যাম মেইলে রেখেছে। তাই আপনি তাদের মেইল বা মেসেজ পাননি

 

Transaction Service Officer (TSO) এর ইনিশিয়াল ভাইবা

সাধারনত জুম এপের মাধ্যমে আপনার ইনিশিয়াল ইন্টারভিউ নিয়ে থাকে। আপনি মোবাইল ফোন এবং ল্যাপটপ/ডেস্কটপ উভয়ের মাধ্যমেই ভাইবাতে অংশগ্রহন করতে পারবেন।

জুমের লিংক ১০ মিনিট আগে দিবে। লিংকে ঢুকে ওয়েটিং থাকতে হবে, এরপর হঠাৎ করেই  ইন করানো হবে। সবসময় সতর্ক থাকতে হবে। ফর্মাল ড্রেসে মেইনটেইন করবেন। স্যুট/ব্লেজার পরিধান করাটা বেটার।

 

IFIC Initial Viva Question Solution – Real Experience

একজনের অভিজ্ঞতা শেয়ার করলাম।

zoom এ ভাইবা কন্ডাক্ট করা হলো। বোর্ডে ৩ জন ছিলেন। প্রথমে একজন স্যার আমার নাম জেনে নিলেন।

এরপর একজন ম্যাম প্রথম প্রশ্ন শুরু করলেন-

১. আমার MBA রেজাল্ট কবে দিয়েছে?

২. ২০১৮ থেকে ২০২২ আমি কি করলাম?

৩. আমি কোথায় জব করি আর কি কাজ করি?

৪. আমার পরিবারে কে কে আছে? বাবা কি করেন? ছোট ভাই কিসে পড়ে?

৫. আমরা ঢাকায় থাকলে নওগাঁতে(আমার গ্রামের বাড়িতে) কি আছে? ** খুব সম্ভবত উনার আমার ডাটা দেখছিলেন।

 

সব সাধারণ প্রশ্নের পর শুরু হলো ঝড়

১. নিজের সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে উঠতে কি কি কাজ করছেন?

২. IFIC সম্পর্কে কি জানেন?

৩. আপনি কি পদের জন্য এপ্লাই করেছেন?

৪. TSO এর কাজ গুলো কি কি?

এরপর উনি প্রশ্ন শেষ করে আরেকজন স্যারকে দিলেন।

স্যারের প্রথম প্রশ্ন।

১. Financial Statement গুলো কি কি?

২. IFIC কেনো আপনাকে সিলেক্ট করবে ইংরেজিতে বলেন?

৩. আপনাকে বাগেরহাট জেলার জন্য নির্বাচন করলে আপনি চাকরি করবেন কি না।

 

IFIC Initial Viva Question Solution Experience

আজকে IFIC Bank এর Initial Viva তে শুধুমাত্র ৩ টি প্রশ্ন করছে:

  • Introduce yourself?
  • What is your father?
  • Why you choose IFIC Bank?

 

IFIC Initial Viva Question Solution

Me: May i come in sir?

Board 2: Yes come in. i entered the room then Sir said Take your seat Please.

Me: Thank You.

Board 2: What is your serial Number?

Me: 18 sir.

Board 2: Oh mr. Sagar Chandra Dey.

Me. yes

Board: madam said is it your first time viva in ific bank?

Me: yes madam.

Board: what are you doing now?

Me: Study

Board: madam said what type of study?

Me : job preparation purpose study.

Board: Do you complete your msc?

Me: no sir.

Board: Madam what is correlation between banking and your CSE engineering subject in this position?

Me: I said no corelation but i want to take challenge and prove my self if i got opportunity.

Board: What are the responsibility of TSO

Me: I said some point a/c opening,closing, mobile banking, credit card,Check issue etc.

Madam : Thank You. You May Go now

Me: Thank You.

 

Transaction Service Officer এর লিখিত পরিক্ষা

লিখিত পরিক্ষায় প্রশ্নের ধরন

  • বাংলা ফোকাস রাইটিং( প্রিয় শখ)
  • করোনার কারনে লক্ষ্যে কি পরিবর্তন হয়েছে(ইংরেজী ফোকাস রাইটিং )
  • বাংলা টু ইংরেজি
  • ইংরাজি টু বাংলা
  • শব্দার্থ (বাংলা টু ইংরেজি )
  • শব্দার্থ ( ইংরেজি টু বাংলা)
  • ইংরাজি শব্দদিয়ে বাক্য গঠন
  • আইডেইটিফাইং টেনস
  • রাইট ফ্রম অফ ভার্ব
  • এপ্টিটিউট টেস্ট
  • ম্যাথ দুইটি
  • লেটার( পারসোনাল লেটার)

 

লিখিত পরিক্ষায় উত্তির্ন হলে কম্পিউটার টেষ্ট দিতে হবে।

 

Transaction Service Officer এর কম্পিউটার টেষ্ট

সিপিটি টেস্ট (ঢাকা, হেড অফিস)

  • মাইক্রোসফট ওয়ার্ড
  • এক্সেলের
  • পাওয়ার পয়েন্ট এর কাজ করতে হবে

 

অনেকের পাওয়ার পয়েন্টের কাজ আসে নি, শুধু মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেলের কাজ করতে হয়েছে।

  • ওয়ার্ডে ৩০ নাম্বার
  • এক্সেলে ২০ নাম্বার
  • সময় ৩০ মিনিট

প্রথমেই ইন্সট্রাকশন অনুসারে পিসিতে নিজের নাম, ট্র‍্যাকিং আইডি দিয়ে একটা ফোল্ডার তৈরি করে হবে এবং একই ভাবে ওই ফোল্ডারের ভিতরে সেইম নামে একটা ওয়ার্ড এবং এক্সেল ফাইল ক্রিয়েট করতে হবে।

 

ওয়ার্ড এ যেসব কাজ করতে হবে।

একটা টেক্সট ফাইলে সবকিছু দেয়া থাকবে। সেখান থেকে প্রথমেই সব কিছু কপি করে ওয়ার্ডে নিতে হবে। এরপর প্রশ্ন অনুযায়ী ফন্ট, কালার, বোল্ড, আন্ডারলাইন, এলাইনমেন্ট, ওয়াটারমার্ক, হেডার, ফুটার, পেজ নাম্বার এগুলো করে নিতে হবে। সবকিছু প্রশ্নে লিখা থাকবে। দেখে দেখে শুধু সেভাবে সাজিয়ে নিবেন। একটা টেবিল ক্রিয়েট করবেন।

৭ জন বীরশ্রেষ্ঠের নাম দেয়া থাকবে, তাদের পদবি অনুযায়ী টেবিলে সাজিয়ে নিবেন। এরপর একটা ফোল্ডারে বীরশ্রেষ্ঠদের ছবি দেয়া থাকবে। তাদের নাম দিয়ে একটা টেবিল তৈরি করতে হবে।
আমার সময়ে হেডারে নিজের নাম, ফুডারে পেজ নাম্বার, ওয়াটারমার্কে IFIC লিখতে হয়েছে।

 

ওয়ার্ড

১। একটা প্যাসেজ কপি পেস্ট

২। কিছু ভুল ছিল প্যাসেজে, সেগুলা কারেকশন করতে হইছে

৩। পেইজ মার্জিন, Gutter কাস্টমাইজেশন

See also  BIWTA Job Circular 2022। বিআইডব্লিউটিএ (BIWTA) নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

৪। ফন্ট , ফন্ট সাইজ কাস্টমাইজেশন , কিছু ওয়ার্ড Bold করা , Underline করা , প্যাসেজের টাইটেল সব UPPERCASE করা

৫। লাইন স্পেসিং, Header এ নিজের নাম, Footer এ পেইজ নাম্বার

৬। প্যাসেজের লাস্ট ৭ লাইন বুলেট স্টাইল

৭। একটা টেবিল করতে হইছে, প্রশ্নে যেমন দেয়া ছিল

 

এক্সেল এ যেসব কাজ করতে হবে।

প্রশ্নের মধ্যে কিছু ডাটা দেয়া থাকবে। এক্সেল শিটে ডাটাগুলো বসিয়ে ফন্ট, কালার, সাইজ, বোল্ড প্রশ্ন অনুযায়ী করে নিতে হবে। এক্সেলে যোগ,বিয়োগ,গুন ভাগ,গড় করতে হতে পারে।
এরপর এই যোগ,বিয়োগ,গুন ভাগ,গড় এর রেজাল্ট নিয়ে প্রশ্নে দেখানো মতো একটা গ্রাফ করতে হবে।

(একটু পরপর কন্টল+এস চেপে সেইভ করে নিতে হবে। যিনি পরিক্ষা নিয়ে থাকেন তিনি অনেকটা হেল্পফুল । তিনি একটু পরপর সেইভ করতে বলবেন ও সময় বলে দিবেন)

এক্সাম শেষে সবার ফাইল তিনি চেক করবেন ও ফাইনাল ভাইভার জন্য কিভাবে আসতে হবে তা বলে দিবেন।

 

এক্সেল

১। মার্ক শিট দেয়া ছিল , সেগুলার টোটাল বের করতে বলছে

২। টোটাল বের করতে হবে SUM ফর্মুলা দিয়ে

৩। স্টুডেন্ট নেম, আইডি নাম্বার আর টোটাল মার্ক্স দিয়ে কলাম চার্ট ( Column Chart ) করতে বলছে ,প্রশ্নে যেমন দেয়া ছিল তেমন করে ।

 

আইএফআইসি ব্যাংক ফাইনাল ভাইভা

ফাইনাল ভাইভা (ঢাকা, হেড অফিস)

মেইলঃ মেইলে আপনাকে ভাইবার ডেট জানিয়ে দিবে।

 

ফাইনাল ভাইভা তেও তেমন প্রশ্ন করেনা। কথা বলার স্টাইল আর ড্রেস আপ শুধু দেখে(এটা আমার ধারনা)। আমাকে শুধু আমি কি করি আর আমার বাবা কি করে জিজ্ঞেস করে। আর বর্তমান জব সম্পর্কে জেনেছে। মাত্র ২ মিনিটে খেল খতম।

তবে ভালোকরে প্রস্তুতি নিয়ে যেতে হবে । একজনকে কম প্রশ্ন করেছে এর অর্থ আপনাকেউ যে কম করবে তা নয় তাই আপনার প্রস্তুতি ভালো থাকা দরকার ।

তবে একটা বিষয় এর ওপড় বেশি গুরুপ্ত দিতে হবে সেটা আপনার পোশাক । অবশ্যই ফরমাল ড্রেস পরে যাবেন সাথে টাই ও ব্লেজার হলে ভালো হয় । যদি ব্লেজার না থাকে তবে ফরমাল এর সাথে টাই পড়তে পারেন ।

 

Transection Service Officer এর বেতন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা

এটা এসিস্ট্যান্ট অফিসার গ্রেডের জব। ১ বছর প্রবিশনে ট্রেইনি এসিস্ট্যান্ট অফিসার। এর পরেই পার্মানেন্ট এবংএসিস্ট্যান্ট অফিসার। প্রথম ১ বছর বেতন বেসিক ১৭২০০ টাকা। সর্বসাকুল্যে ২৮৩৭০ টাকা। ব্রাঞ্চে দিলে সাধারণ ২০০০ টাকা ভাতা পাওয়া যায় মান্থলি। প্রবেশন পিরিয়ড শেষ (১ বছর পর) হলে মোট বেতন সর্বসাকুল্যে ৩৫৯৯০ টাকা। এছাড়া অথরাইজড ব্রাঞ্চ (এডি ব্রাঞ্চ) হলে শনিবারে অফিসের জন্য ৪০০ করে পে করে পারডে (শনিবারে ১০ টা থেকে ২ টা পর্যন্ত)। আপনার নিয়োগ হওয়ার পরে থেকেই গ্রুপ ইন্সুরেন্স এর আওতায় আসবেন।

আইএফআইসি ব্যাংক আপনার হয়ে মান্থলী প্রিমিয়াম আলাদা ভাবে পে করবে। আপনি বা আপনার স্পাউস বা আপনার ২ বাচ্চা (সর্বোচ্চ) এই ৪ জনের জন্য বছরে ৪ লাখ করে সর্বোচ্চ কাভারেজ পাবেন চিকিৎসার জন্য। সবার জন্য ১৬ লাখ। ডকুমেন্ট জমা দেয়া সাপেক্ষ এই ইন্সুরেন্স কাভারেজ পাওয়া যায়। তাছারা কোন কারনে মারা গেলে নমিনেটেড ব্যাক্তি বা ব্যাক্তিরা এক কালিন ১৫ লক্ষ টাকা পাবেন। এছারা ব্যাংকের অন্যান্য সুবিধা তো আছেই।

যেমনঃ স্যালারী একাউন্ট ফ্রী সাথে একটা পারসোনাল “আমার একাউন্ট” সেটাও কার্ড ফি, চেক ইত্যাদি ফ্রি। সার্ভিসের মান ভাল হলে কয়েক বছরে সিনিয়র অফিসার হওয়ার সুযোগ আছে। ব্রাঞ্চে হলে মাসে আরো অতিরিক্ত ২০০০ এবং এডি ব্রাঞ্চ হলে এক্সট্রা ডে এর জন্য ভাতা পাওয়া যাবে।

 

Another Candidate Experience

ফাইনাল ভাইভা

ফাইনাল ভাইভা সম্পূর্ন নির্ভর করে বোর্ড মেম্বার দের উপর। আগে থেকে কেউ আপনাকে বলে দিতে পারবেনা কি কি প্রশ্ন ধরতে পারে। ওখানে যারা থাকবেন তাদের মন-মর্জির উপর নির্ভর করে। তবে আমাদের পূর্ববর্তী ,আমাদের ফেজ এবং গ্রুপে বিভিন্ন বড় ভাই-বোন দের কমেন্ট এনালাইসিস করে বেশ কিছু প্রশ্ন সাজিয়েছি। আশা করি ঘুরেফিরে সবাইকে এগুলাই ধরে।

  • নিজের সমন্ধে
  • পড়াশুনার ব্যাপার
  • পরিবারে সমন্ধে, কে কি করে
  • যারা BBA/MBA ছাড়া অন্য ব্যাকগ্রাউন্ডের তাদের জন্য, এই সাব্জেক্ট পড়ে ব্যাংক এ কেন?
  • ব্যাংকিং সেক্টর কেন চুজ করলেন?
  • নিজের সাব্জেক্টের অর্জিত জ্ঞান কিভাবে এই পোস্টে কাজে লাগাবেন?
  • ঢাকার বাইরে পোস্টিং দিলে যাবেন ত?
  • মেয়েদের ক্ষেত্রে যারা বিবাহিত, কিভাবে জব করে সংসার সামলাবেন।
  • ড্রিম জব কি?
  • সরকারি ব্যাংকে চান্স পেলে থাকবেন নাকি চলে যাবেন?
  • TSO এর ফুল ফর্ম, এই পোস্টের রেস্পন্সিবিলিটিগুলা বলেন
  • IFIC সমন্ধে (ফুল ফর্ম, যাত্রাকাল,চেয়ারম্যান,এমডি,ব্রাঞ্চ,সাব-ব্রাঞ্চ ইত্যাদি)
  • IFIC এর কমার্শিয়াল বিজ্ঞাপন দেখেছেন?
  • আগে যে কোম্পানিতে জব করতেন সে সমন্ধে সংক্ষেপে বলুন।
  • বাংলাদেশ ব্যাংক সমন্ধে (কাজ,বর্তমান গভর্নর, অর্থমন্ত্রী)

ঘুরেফিরে দেখলাম এই প্রশ্ন গুলোই সবাই কে করে।প্রশ্ন বাংলায় করলে বাংলাতেই উত্তর দিবেন, আর ইংরেজীতে করলে ইংরেজী।তবে সাধারণত বাংলাতেই করে। অনেকে ঢুকে ৩০-৪০ সেকেন্ডেই বেরিয়ে যেতেও দেখেছি।অনেকের ৪-৫ মিনিট ও লেগেছে। মাঝে মধ্যে আপনার টেম্পার চেক করার জন্য কিছু অকওয়ার্ড কথা বলতে পারে( দেখার জন্য আপনি কিভাবে রিয়েক্ট করেন) ।হাসিমুখে ব্যাপার গুলো কাটাবেন।

See also  ইসলামী ব্যাংক সিকিউরিটি গার্ড (অস্থায়ী) নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২২

ভুলেও রাগান্বিত বা নার্ভাস হবেন না। দরকার হলে হাসি দিয়ে চুপ করে থাকবেন।তর্ক করে নিজের বিপদ দেকে আনবেন না।

Real Experience

যারা ফাইনাল ইন্টার্ভিউ দিবেনঃ

**দুইটা জিনিস খুব সিরিয়াসলি মেইন্টেন কইরেন , আপনার ড্রেস আপ আর কনফিডেন্স ।

**সিরিয়ালি ডাকবে , HR স্যার সব বলে দিবে কি কি বলতে হবে , কিভাবে বলতে হবে । তাই টেনশনের কিছু নাই । MD স্যার বলতে বললে আপনি বলবেন এই সিকুয়েন্সে

১। নাম
২। একাডেমিক ব্যাকগ্রাউন্ড আর স্টাডি গ্যাপ থাকলে নিজে থেকেই বলবেন
৩। ফ্যামিলি
৪। জব এক্সপেরিয়ান্স যদি থাকে

 

**তবে কিছু জিনিস মাথায় রাইখেন

১। MD স্যার সিরিয়াস মানুষ , তাই সিরিয়াসনেস দেখে ঘাবড়ানোর কিছু নাই ।

২। উপরে বললাম HR স্যার বলে দিবে কিভাবে বলতে হবে , MD স্যার বলতে বললে আপনি একদম বলে শেষ করে দিবেন এমন সৌভাগ্য সবার হয় না । কারণ MD স্যার মাঝে মাঝে নিজ থেকে প্রশ্ন করবে , প্রশ্ন এইগুলাই কিন্ত উনি স্পেসিফিক পয়েন্ট জানতে চাইলে আপনার মাথায় প্রি-সেট করা সিকুয়েন্সে হয়তো বলতে পারবেন না , তাই ঘাবড়ানোর কিছু নাই । সুন্দর করে বলতে পারলেই হবে ।

৩। তর্কে যাবেন না ।

৪। হাসিখুশি ফেস পজিটিভ ইম্প্রেশন ক্রিয়েট করে ।

৫। সালাম দিয়েন , ধন্যবাদ দিয়েন । মানে নর্মাল কার্টেসি মেইন্টেইন কইরেন

 

ফাইনাল ভাইভার আগে আপনাকে মেইলে কয়েকটা গুগল ফর্ম পূরণ করতে হবে। ব্রাঞ্চ প্রেফারেন্স এবং প্রি ফাইনাল ইন্টারভিউ ফর্ম পূরণ করতে হবে। যেদিন মেইল পাবেন, সেদিন রাত ১২ টার মধ্যেই পূরণ করতে বলা হয়। তাই মেইল ও এসএমএসের দিকে লক্ষ রাখবেন। ব্রাঞ্চ প্রেফারেন্সের ক্ষেত্রে ঢাকা/চট্টগ্রাম মেট্রো এরিয়া বাদ, এছাড়া গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জেও প্রেফারেন্স দিতে নিরুৎসাহিত করা হয় কারণ এসব জায়গায় পোস্ট খালি নেই। সাথে নিদিষ্ট ব্রাঞ্চ না চয়েজ দিয়ে জেলা চয়েজ দিলে পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি আছে বলা হয়েছে।

ফর্মাল ড্রেসে যেতে হবে (ছেলেদের ক্ষেত্রে ব্রেজার,প্যান্ট,বেল্ট ও সু একই কালার হওয়া ভালো মেয়েদের ক্ষেত্রে শাড়ি ) এই বিষয় গুলো CPT দেওয়া শেষে বলে দিবে। প্রথমেই আপনার সিভি, প্রি ফাইনাল ইন্টার্ভিউ ফর্ম এবং এসএসসির ট্রান্সক্রিপ্ট জমা নিয়ে নিবে। এরপর কিছু ইন্সট্রাকশন দিবে। সবাইকে যার যার নিদিষ্ট সিরিয়াল অনুযায়ী বসতে হবে। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর কিভাবে দিতে হবে তা দুজন HR জানিয়ে দিবেন।

 

ফাইনাল ভাইবা উত্তির্ন হওয়ার পর

এপায়েন্টমেন্ট নিয়ে আসতে হলে সাথে ৩টি নন-জুডিশিয়াল স্টাম্প নিয়ে যেতে হবে। যাওয়ার পরে সবার থেকে স্টাম্প নিয়ে গিয়ে স্টাম্পে কিছু প্রিন্ট করে আবার দিয়ে দিবে সাথে এপায়েন্টমেন্ট লেটার ও অন্যান্য কাগজ দিবে।

এগুলো পূরন করে নিদৃষ্ট তারিখে জমা দিতে হবে। কিভাবে পূরন করতে হবে তার জন্য সেটা মেইলর মাধ্যমে জানিয়ে দিবে।

(যাদের এক্সটেনশন লাগবে তাদের কেন লাগবে সেটা জানতে চাইবে সবাইকে ই এক্সটেনশন দিবে IFIC HR খুবেই হেল্পফুল আগেও একবার বলেছি, এক্সটেনশনের জন্য একটা আবেদন টাইপ/ হাতে লিখে নিয়ে যাবেন) সাধারনত যারা অন্য কোথাও জব করেন, তাদের ক্ষেত্রে প্রয়োজনিয়।

ডকুমেন্ট সিকিংঃ

এদিন সব ডকুমেন্ট সাবমিট করার পরে ঐ দিন সন্ধ্যায় কোথায় পোস্টিং সেটা জানিয়ে দিবে ।

ফাইনাল জয়েনিংঃ ফাইনাল জয়েনিংয়ের তারিখ জানিয়ে দিবে।

ট্রানজেকশন সার্ভিস অফিসার এর কাজ কি

যথাযত প্রক্রিয়া শেষে আপনাকে নিদৃষ্ট ব্রাঞ্চে যোগদান করতে বলা হবে। Transaction Service Officer দের প্রথমদিকে সাধারণত উপশাখাতে কাজ করতে হয়। উপশাখাতে কাজ করলেও চাকরির বেতন বা সুযোগ সুবিধা প্রধান ব্রাঞ্চের মতই। তাই উপ শাখাতে পোষ্টিং দিলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোন কারন নেই। তবে আপনাকে উপশাখায় দেয়ার আগে মেইন ব্রাঞ্চে প্রশিক্ষন করানো হবে। সেক্ষেত্রে আপনাকে সব ধরনের কাজ করতে হবে।

 

প্রশিক্ষন শেষে ব্রাঞ্চে যোগদানের পর আপনার কাজ হবে অনেকটা নিম্নরুপ:

ক্যাশ ম্যানেজমেন্ট: আপনাকে অবশ্যই ক্যাশ ম্যানেজমেন্টে কাজ করতে হবে, মানে ক্যাশিয়ার। ক্যাশ সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ আপনাকে করতে হবে।

ওয়ান স্টপ: জমা এবং উত্তোলনের কাজও আপনাকে করতে হবে।

একাউন্ট সংক্রান্ত: একাউন্ট খোলা এবং বন্ধ সহ একাউন্ট ম্যানেজমেন্ট সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ করতে হবে।

লোন সংক্রান্ত: লোন সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ আপনাকে করতে হবে। লোন দেয়া এবং কালেকশনের কাজও করতে হবে।

ক্যাম্পেইন করা: আইএফআইসি ব্যাংকের বিভিন্ন প্রোডাক্ট নিয়ে কেম্পেইন করতে হবে। যেমন: ডিপোজিট, লোন, ক্রেডিট কার্ড, ডেবিট কার্ড ও ব্যাংকের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা নিয়ে কেম্পেইন করতে হবে।

 

দায়-দায়িত্ব: 

  • ফ্রন্ট লাইন সেবা প্রদানকারী হিসেবে অ্যাকাউন্ট খােলা
  • চেক বই ইস্যু সহ জেনারেল ব্যাংকিং এর সকল কাজ
  • POS মেশিন হ্যান্ডল
  • কার্ড ও মােবাইল ব্যাংকিং অপারেশন
  • ক্লিয়ারিং
  • ক্যাশ রিসিপ্ট এবং পেমেন্ট ও 
  • ফরেন রেমিট্যান্স পেমেন্ট।

 

এক কথায় ব্যাংকের সব ধরনের কাজের সাথে সম্পৃক্ত থাকবেন। তবে আপনার উর্ব্ধতন কর্তৃপক্ষ আপনার কাজ নিদৃষ্ট করে দিবে।

 

Related Articles

Back to top button