পদার্থ

অ্যাস্ট্রোনমি এবং অ্যাস্ট্রোফিজিক্স এর মধ্যে পার্থক্য কী?

অ্যাস্ট্রোনমি (Astronomy) এবং অ্যাস্ট্রোফিজিক্স (Astrophysics)-এর মধ্যে পার্থক্য কী?

চাঁদের কপালে চাঁদ টিপ দিয়ে যা!

আকাশের চাঁদ, তারা, সূর্য ইত্যাদি নিয়ে আমাদের ছোটোবেলা থেকেই কতই না আগ্রহ! মিটি মিটি তারা জ্বলে, চাঁদ আলো ছড়ায় এগুলো দেখে আমাদের কৌতুহল জমে মনে।

মানুষের যখন থেকে একটা মস্তিষ্ক পূর্ণ বিকশিত হয়েছিলো তখন থেকেই মানুষ মহাকাশ নিয়ে ভাবতে থাকে। দূরের বস্তুগুলোকে দেখার জন্য তারা আবিষ্কার করলো টেলিস্কোপ। টেলিস্কোপ ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখতে লাগলো চাঁদ কিরকম, তারা কিরকম, সূর্য কিরকম আরো কতো কিছু। প্রথম প্রথম দেখেই মনের স্বাদ মিঠাতো। কিন্তু তা আর কতদিন। মাথায় প্রশ্ন আসা শুরু করলো, এগুলো কিভাবে সৃষ্টি হলো, সৃষ্টির শুরুতে তারা কেমন ছিলো, সৃষ্টি হওয়ার শক্তি তারা কোথায় পেলো এরকম হাজারো প্রশ্ন।

অ্যাস্ট্রোনমি

Image Credit: Dean’s Astro Images

See also  মাত্রা কাকে বলে, কত প্রকার ও মাত্রার ব্যবহার

দুইটা শব্দের উৎপত্তি ঘটলো অ্যাস্ট্রোনমি (Astronomy) এবং Astrophysics.

সহজভাবে বললে প্রথম দিকে মানুষের মনে কৌতুহল থেকে যেটা সৃষ্টি হলো সেটাঅ্যাস্ট্রোনমি (Astronomy), আর মানুষ গুলো হলো Astronomer.  এই Astronomy তে থাকে তারা কিরকম, চাঁদ কিরকম, কিরকম ধাতু বা কোনরকমের পদার্থ দিয়ে তৈরি এরকম গুণগত প্রশ্ন নিয়েই Astronomy. তাহলে তো আমরা আমাদেরকেও Astronomer বলতে পারি তাই না! কারণ আমরাও এখন তারা দেখি, চাঁদ দেখি এবং তাদের নিয়ে অনেক কিছু জানি। টেলিস্কোপ দিয়ে দেখি, বিভিন্ন অলিম্পিয়াডের আয়োজন করি। অনেকে এসব অলিম্পিয়াড এ অংশগ্রহণ করি। তাহলে আমরা যারা কম বেশি আকাশ(মহাশূন্য) দেখি, তা সম্পর্কে জানি তাদের ক্ষুদে Astronomer বলতে পারি। যখন আমরা বিশদে জানবো মানে কোনটা কত আলোকবর্ষ দূরে, ধুমকেতু এখন কোথায় অবস্থান করছে এবং কত বছর পর আবার পৃথিবীকে অতিক্রম করে যাবে তখন আস্তে আস্তে বড় Astronomer হয়ে উঠবো।

আর এই বিশদে জানার থেকে উৎপন্ন হলো Astrophysics এর। তাই, অ্যাস্ট্রোনমি (Astronomy) এর একটি শাখা হলো Astrophysics.

See also  ইলেকট্রন কেন নিউক্লিয়াসের চারদিকে ঘুরে?

পদার্থ্যবিজ্ঞানের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হল শক্তি। শক্তির বিশ্লেষণই পদার্থবিদ্যার মূল কাজ।

সূর্য কি পরিমাণ শক্তি বিকিরণ করছে এবং বিকিরণ করতে করতে কখন শ্বেত বামনে রূপ নেবে, কখন একটি নক্ষত্র কৃষ্ণগহ্বরে রূপ নেবে, আলো কেনো কৃষ্ণ গহ্বরে হারিয়ে যায় এরকম বিভিন্ন তত্বের বিশ্লেষণই Astrophysics এর কাজ।

Astrophysics এ দুই রকমের কাজ করতে হয়৷ একটা হল তত্বীয় অপরটি হলো ব্যবহারিক। তত্বীয় কাজে বিভিন্ন সূত্র তৈরি করা হয় এবং সেগুলোর বিশ্লেষণ করা হয়। এরপর বিশ্লেষিত সূত্র গুলোকে কাজে লাগানো হয়, তখন সেটা ব্যবহারিক পর্যায়ে পরে। ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষের দিকে এই Astrophysics প্রসার লাভ করা শুরু করে। বিশেষ করে পারমাণবিক তত্বের ধারণ তৈরি হওয়ার পর থেকে। কারণ, তখন পদার্থবিদ্যা সূর্যের হাইড্রোজেন-হিলিয়ামের ফিউশন বিক্রিয়া ব্যাখ্যা করতে সক্ষম হয়। ক্রমে ক্রমে আরো গভীর তত্বের সন্ধান শুরু করে পদার্থবিজ্ঞান। এভাবেই Astrophysics এর সুচনা হয়ে ধীরে ধীরে বিস্তার লাভ করছে।

উল্লেখ্য, আমরা সকলে সহজে ক্ষুদে Astronomer হলেও ক্ষুদে Astrophysicist হওয়া সহজ নয়। তার জন্য কিছু পড়ালেখা করতে হবে, এটুকুই।

See also  আলফা রশ্মি কাকে বলে ও আলফা রশ্মির ধর্ম?

Related Articles

Back to top button